5
New ফ্রেশ ফুটপ্রিন্ট
 
 
 
 
 
ফ্রেশ!
REGISTER

মোবাইল আর ইন্টারনেট কি আসলেই আমাদের উন্নত করতে পেরেছে ?

Now Reading
মোবাইল আর ইন্টারনেট কি আসলেই আমাদের উন্নত করতে পেরেছে ?

মোবাইল ফোন আমাদের বেষ্ট ফ্রেন্ডের মত হয়ে গেছে। এখন আমরা সাথে টাকা পয়সা না নিলেও মোবাইল টা নিতে ভুলি না। যেমন আমাদের খিদা লাগে খাওয়ার কথা মনে করার জন্য। তেমন হাতটাও সুর সুর করে ফোনের কথা মনে করার জন্য। জীবনটা কে অনেক সহজ করে দিয়েছে মোবাইল ফোন। কিন্তু আমাদের অবস্থা কোথায় যেয়ে দাড়িয়েছে ভাবতে পারেন? আজ থেকে ১০ বছর আগের কথা চিন্তা করলেই পাবো। আগে কোথাও বন্ধুরা মিলে আড্ডা দিলে সেখানে অনেক কথা হতো, অনেক হাসি, গান বাজনা, ফাইজলামি। সবচেয়ে ভাল ফোন বলতে একজন এর কাছে ছিল নকিয়া এন সেভেন্টি মোবাইল। এখন প্রযুক্তির আধুনিকতায় এন্ড্রয়েড, আই ও এস, উইন্ডোস আরো অনেক কিছু। একজন সেলফি তুলে, একজন অনলাইনে এটাক দিতে ব্যাস্ত। এই এখনকার আড্ডা। আপনি যখন ছোটবেলায় ঈদের ছুটিতে গ্রামের বাড়িতে যেতেন, আপনার মামাতো চাচাতো ভাই বোন দের সাথে মাঠে যেতেন শশা, টমেটো চুরি করতে। পুকুরে ঝাপ দিতেন গাছের উপর থেকে। অনেক ভোরে উঠে যেতেন বকুল আর শিউলি ফুল কুড়াইতে। নানী পিঠা বানাইতো আর আপনারা রান্নাঘরে লাইন দিয়ে বসে পড়তেন। এখন ঈদে বাসায় গেলে কি হয় জানেন? ম্যাসেঞ্জারে ভিডিও কল আসে। “এই দোস্ত এইখানে নেট ভাল না ভিডিও কল হবেনা”। সারা দিন ঘরের কোণায় বসে ফেইসবুক। কেও কেও তো ওয়াই ফাই নাই বলে গ্রামে যায় না।

কি দিন আসলো, মোবাইল ফোনের আবিষ্কার হয়েছে আমাদের উপকারের জন্য। এই যন্ত্রটা নাকি আমাদের টাইম বাচায়। সত্যি? জন্মের পর থেকে এই জিনিসটা আমি টাইম পাসের জন্য ইউজ করি। আসলেই তাই, পড়তে ভাল লাগছে না? একটু নিউজ ফিড ঘুরে আসি। ঘুম আসছে না? ইউটিউবে যাই। মোবাইল আমাদের সবকিছু নিয়ে এসেছে হাতের মুঠোয় নাকি আমরা চলে গেছি মুঠোফোনের মুঠোর মধ্যে। আগে ছোটবেলায় বিকালে মাঠে খেলতে যেতে একটু দেরি হইলে আর জায়গা পাইতাম না। এখন মাঠের সব ঘাস গরুতে খায়। কারণ কি জানেন? এখন অনেক কম দামে ট্যাব পাওয়া যায়। যাতে অনেক গেইম ঘরে বসেই খেলা যায়। এইসবের ফলস্রুতি তে আমরা কি পাচ্ছি জানেন? ক্লাস সিক্সের ছেলের স্ট্যাটাস “অতীত কে ভুলতে চাই”। ক্লাস সিক্সের একটা ছেলের কি অতীত থাকতে পারে। আমার ক্লাস ফোরে থাকতে আমাকে একটা সুন্দর রঙ পেন্সিল এর বক্স কিনে দিছিল আমার মা। সেটা কয়েকদিন পরেই চুরি হয়ে যায়। আমি এই অতীত টা এখনও ভুলতে চাই। বন্ধুদের সাথে হ্যাংআউটে গেছেন? একজন আরেকজন কে বলছে “দোস্ত আমার ক্ল্যানে আয়”। আগে মানুষ ভাল রেস্টুরেন্টে খাইতে গেলে হাত মুখ ধুয়ে বসতো, এখন ক্যামেরা ওপেন করে বসে, চেক ইন দেয়। খাওয়ার আগে সৃষ্টিকর্তাকে ধন্যবাদ জানাতে ভুলে গেলেও সেলফি তুলতে ভুলি না আমরা। হাইরে যুগের উন্নতি। এখন এমন অবস্থা চলে এসেছে রাস্তায় মানুষ মরে গেলে বাচানো বাদ দিয়ে ছবি তোলে।

নিজেকে প্রশ্ন করেন তো বাসায় বাবা, মা, ভাই, বোন এর চেহারা টা ভালভাবে শেষ কবে দেখেছেন?  বাসায় এসে ল্যাপটপ আর ফোনের ভিতর মুখ গুজে পড়ে থাকেন। মা এসে খেতে ডাকে আপনি কথা বলেন। তবে চোখ কিন্তু থাকে ওই ডিভাইসের দিকেই থাকে। বাবা রুমে এসে বলছেন তোর সাথে জরুরী কথা আছে। আমি বলি বলেন। আমি তাকিয়েও দেখিনা বাবার দিকে। এই আমার জরুরি মিটিং। যতই জরুরী কথা হোক না কেন আমরা তা বলি মোবাইল এর দিকে তাকিয়ে। সাইকোলজিস্ট রা বলেন কোন মানুষের পছন্দের তালিকায় থাকতে হলে তার সব কথায় পূর্ণ মনোযোগ দিতে হয়। আমরা তো এখন মানুষের চেহারা সামনা সামনির থেকে ফেইসবুক, ইন্সটাগ্রামে দেখি।

মর্ডান যুগে খেলার মাঠের আকার ছোট হচ্ছে আর ফোনের র‍্যাম বাড়ছে। মানুষ টেকনলজিকালি আপগ্রেড হচ্ছে কিন্তু ফিজিকালি, মেন্টালি দুর্বল হচ্ছে। আমি যুগ বা প্রযুক্তি কোনটারই দোষ দিচ্ছি না। আমি শুধু মাত্র বলছি যান্ত্রিক আর আধুনিকতার ছোয়াতে আমরা রক্তে মাংশে গড়া মানুষ গুলাও কেমন জানি যান্ত্রিক হয়ে যাচ্ছি দিন দিন। প্রযুক্তি কে কাজে লাগিয়ে জীবন টা গড়তে হবে। আমাদের প্রযুক্তি কে যথাযথ ভাবে ব্যবহার করতে হবে। প্রযুক্তি যেন আমাদের ব্যবহার না করে বসে এটা খেয়াল রাখতে হবে। আমরা যাদের তৈরি ফেইসবুক, ইউটিউব, গুগল ব্যবহার করছি তারা কি সারাদিন ফেইসবুক চালাতেন ? না তারা প্রযুক্তি কে ব্যবহার করেছে আর বিশ্বকে পালটে ফেলেছে। আর তাদের বানানো প্রযুক্তি গুলো আমাদেরকে ব্যবহার করে আমাদের পালটে ফেলেছে। মনে করেন আপনার খুব খারাপ অবস্থা , আপনি আইসিইউ তে আছেন। বাইরে বসা আপনার বাবা, মা, বন্ধুবান্ধব আর আত্বীয় স্বজন। কিন্তু আপনার তো অনেক পপুলারিটি। আপনি ফেইসবুকে ৫০০০০০ মেম্বার ওয়ালা একটা গ্রুপের মালিক। ইউটিউবে আপনার চ্যানেলে লক্ষাধিক সাবস্ক্রাইবার। তাহলে আজ আইসিইউ এর সামনে কেও নেই কেন? কোথায় আপনার হাজার হাজার ফ্যান ফলোয়ার? কোথায় আপনার সাবস্ক্রাইবার। আপনার বাবা মায়ের থেকে আপন কেও হতে পারেনা। কিন্তু যখন বাসায় ৩ এম্বিপিএস এর ব্রডব্যান্ড কানেকশন থাকে তখন তেই কানেকশনের সামনে মা যদি একটু খেতে ডাকে আপনি তাতেই অসাধারণ এক বিরক্তবোধ প্রকাশ করেন। আপনার জীবন টা কিন্তু এতদুর এই অনলাইনে ব্রাউজিং করে করে আসেনি। এসেছে আপনার বাবা মায়ের ঘামঝরা পরিশ্রমে। তাই তাদের সময় দিন। মাঠে যান, বন্ধুদের সাথে সময় কাটান, ক্রিকেট খেলুন, দুই একটা গল্পের বই পড়ুন। আর মাঝে মাঝে ফেইসবুকে যান, ইউটিউবে যান। আপনি কি আপনার জীবনটা সত্যিই উপভোগ করছেন ? এর উত্তর আমি বলে দিচ্ছি। দিন শেষে আপনার ফোনের ব্যাটারি যদি ৮০% এর বেশি অবশিষ্ট থাকে তাহলেই আপনি জীবনটাকে উপভোগ করছেন। তাছাড়া না। জীবনের জন্য প্রযুক্তি, প্রযুক্তির জন্য জীবন না।

ছবিঃ গুগল

ইন্টারনেটের ইতিহাস

Now Reading
ইন্টারনেটের ইতিহাস

১৯৫০-এর দশকে ইলেকট্রনিক কম্পিউটারের গঠন শুরু হয়। প্রাথমিক ধারণা প্যাকেট নেটওয়ার্কিং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ও ফ্রান্সে বিভিন্ন কম্পিউটার বিজ্ঞান ল্যাবরেটরিজ মধ্যে সম্ভূত। ডিফেন্স ডিপার্টমেন্ট প্যাকেট নেটওয়ার্কের সিস্টেমের জন্য চুক্তি যত দ্রুত হিসেবে উন্নয়নসহ ১৯৬০, ভূষিত যেটি ARPANET ।
কম্পিউটার এর মাধ্যমে প্রথম বার্তা বিজ্ঞান অধ্যাপক লিওনার্ড Kleinrock এর পরীক্ষাগার থেকে যেটি ARPANET উপর পাঠানো হয়েছিল ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়, লস এঞ্জেলেস স্ট্যানফোর্ড রিসার্চ ইনস্টিটিউটে ।

প্যাকেট সুইচিং

যেটি ARPANET নেটওয়ার্ক NPL নেটওয়ার্কের , CYCLADES , মেরিট নেটওয়ার্ক , টিমনেট এবং টেলিনেট , বিভিন্ন ব্যবহার ১৯৬০ এবং ১৯৭০ এর দশকে উন্নত ছিল যোগাযোগ প্রোটোকল হিসেবে । ডোনাল্ড ডেভিস প্রথমে প্যাকেট সুইচড নেটওয়ার্ক পরিকল্পিত করে ন্যাশনাল ফিজিক্স ল্যাবরেটরি ইউ কে, যা প্রায় দুই দশক ধরে যুক্তরাজ্য গবেষণার জন্য একটি টেস্টবেড হয়ে ওঠে। ARPANET প্রকল্পের জন্য প্রোটোকল উন্নয়ন নেতৃত্বে হিসাবে কাজ করে ইন্টারনেট ওয়ার্কিং , যা একাধিক পৃথক নেটওয়ার্ক কে যুক্ত করার কাজ করে।
ARPANET অ্যাক্সেস ১৯৮১ সালে সম্প্রসারিত হয় যখন জাতীয় বিজ্ঞান ফাউন্ডেশন (এনএসএফ) গড়ে তুলেছিল কম্পিউটার সায়েন্স নেটওয়ার্ক (CSNET) ।
১৯৮২ সালে, ইন্টারনেট প্রোটোকল স্যুট (টিসিপি / আইপি) ARPANET- এ প্রমিত নেটওয়ার্কিং প্রোটোকল হিসাবে চালু করা হয়েছিল । গোড়ার দিকে ১৯৮০ সালে এনএসএফ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়,জাতীয় সুপারকম্পিউটিং কেন্দ্রের প্রতিষ্ঠা গড়ে তুলছে । বাণিজ্যিক ইন্টারনেট পরিষেবা সরবরাহকারীরা (আইএসপি) ১৯৮০ এর দশকের শেষভাগে উঠতে শুরু করেছিল । আনুষ্ঠানিকভাবে বাণিজ্যিক সংস্থার মাধ্যমে ইন্টারনেটের অংশে লিমিটেড প্রাইভেট সংযোগগুলি ১৯৮৯ এবং ১৯৯০ সালের শেষের দিকে কয়েকটি আমেরিকান শহরগুলিতে আবিষ্ট হয়,এবং এনএসএফএনএইট ১৯৯৫ সালে নিষিদ্ধ ছিল, বাণিজ্যিক ট্র্যাফিক বহন করার জন্য ইন্টারনেট ব্যবহারের সর্বশেষ নিষেধাজ্ঞা অপসারণ করে।
১৯৮০ সালে ব্রিটিশ কম্পিউটার বিজ্ঞানী টিম বার্নার্স-লি সুইজারল্যান্ডে CERN এ গবেষণা ওয়ার্ল্ড ওয়াইড ওয়েব ফলে একটি তথ্য সিস্টেমের মধ্যে হাইপারটেক্সট নথি, নেটওয়ার্কে কোনো নোড থেকে অ্যাক্সেসযোগ্য লিঙ্ক তৈরি করে।

1990-এর দশকের মাঝামাঝি থেকে, ইন্টারনেটের মাধ্যমে বৈদ্যুতিন মেল, তাত্ক্ষণিক বার্তা প্রেরণ, ইন্টারনেট প্রটোকল (ভিওআইপি) টেলিফোন কলগুলির মাধ্যমে ভয়েস, দ্বিপথ ইন্টারেক্টিভ, সহ সংস্কৃতি, বাণিজ্য এবং প্রযুক্তির উপর বিপ্লবী প্রভাব রয়েছে। গবেষণা এবং শিক্ষা সম্প্রদায় বিকাশ এবং এই ধরনের এনএসএফ খুব উচ্চ গতিতে দাঁড়া নেটওয়ার্ক সার্ভিস (vBNS), Internet, এবং জাতীয় LambdaRail উন্নত নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে চলেছেন।
ডেটার পরিমাণ বৃদ্ধি করে এবং ফাইবার অপটিক নেটওয়ার্কের মাধ্যমে উচ্চ এবং উচ্চতর গতিতে প্রেরিত হয় 1-Gbit / সেকেন্ড এ অপারেটিং 10 Gbit / সেকেন্ড, বা আরো বেশি ।

প্রিকার্সর (precursors)
তথ্য যোগাযোগের ধারণা – একটি ইলেক্ট্রোম্যাগনেটিক মাধ্যম যেমন রেডিও বা বৈদ্যুতিক তারের মাধ্যমে দুটি ভিন্ন স্থানগুলির মধ্যে ডাটা প্রেরণ – প্রথম কম্পিউটারের প্রবর্তনটি পূর্বাভাস দেয় । এই ধরনের যোগাযোগ ব্যবস্থাগুলি সাধারণত দুইটি নির্দিষ্ট ডিভাইসের মধ্যে যোগাযোগের নির্দেশ দেয়। টেলিগ্রাফ সিস্টেম ও টেলেক্স মেশিন যোগাযোগ এই ধরনের প্রথম প্রিকার্সর বিবেচনা করা যেতে পারে। ১৯ শতাব্দীর মধ্যে টেলিগ্রাফ প্রথম পুরোপুরি ডিজিটাল যোগাযোগ ব্যবস্থা ছিল।

ডেটা ট্রান্সমিশন এবং তথ্য তত্ত্বের মৌলিক তাত্ত্বিক কাজটি ক্লড শ্যানন, হ্যারি নুইউইচ, এবং র্যাল্ফ হার্টলি দ্বারা ২0 শতকের প্রথম দিকে তৈরি করা হয়েছিল ।

প্রাথমিক কম্পিউটারগুলির একটি কেন্দ্রীয় প্রক্রিয়াকরণ ইউনিট এবং দূরবর্তী টার্মিনাল ছিল। প্রযুক্তি উদ্ভাবন হিসাবে, নতুন সিস্টেমের জন্য দীর্ঘ দূরত্ব (টার্মিনালগুলির জন্য) বা উচ্চ গতির (স্থানীয় ডিভাইসের ইন্টারকানেকশন জন্য) যোগাযোগের অনুমতি দেওয়া হয়েছিল যা মেইনফ্রেম কম্পিউটার মডেলের জন্য প্রয়োজনীয় ছিল। এই প্রযুক্তিগুলি দূরবর্তী কম্পিউটারগুলির মধ্যে ডেটা (যেমন ফাইল) বিনিময় করা সম্ভব করেছে যাইহোক, পয়েন্ট-টু-পয়েন্ট কমিউনিকেশন মডেল সীমিত ছিল, যেহেতু এটি কোনও দুটি অবাধ সিস্টেমের মধ্যে সরাসরি যোগাযোগের অনুমতি দেয়নি; একটি শারীরিক লিঙ্ক প্রয়োজন ছিল। কৌশলগত এবং সামরিক ব্যবহারের জন্যও প্রযুক্তিটি অনিরাপদ বলে বিবেচিত ছিল কারণ শত্রুর আক্রমণের ক্ষেত্রে যোগাযোগের জন্য কোন বিকল্প পথ ছিল না।
ওয়াইড-এরিয়া নেটওয়ার্কিং এর উন্নয়ন

সীমিত ব্যতিক্রম ছাড়া, নিকটতম কম্পিউটারের স্বতন্ত্র ব্যবহারকারীর দ্বারা ব্যবহৃত টার্মিনাল থেকে সরাসরি সংযুক্ত করা হয়, সাধারণত একই বিল্ডিং বা সাইটে। এই ধরনের নেটওয়ার্ক স্থানীয়-এলাকা নেটওয়ার্ক (LAN) হিসাবে পরিচিত হয়ে ওঠে। এই সুযোগ, ওয়াইড এরিয়া নেটওয়ার্ক (WANs) নামে পরিচিত তার পরেও নেটওয়ার্কিং, ১৯৫০ সময় নির্গত এবং ১৯৬০ সময় প্রতিষ্ঠিত হয়ে ওঠে।
বোল্ট বেরানেক ও নিউম্যান, ইনকর্পোরেশনের ভাইস প্রেসিডেন্ট জে। সি। লিক্লাইডার, জানুয়ারী ১৯৬০ এর জানুয়ারি মাসে ম্যান-কম্পিউটার সিম্বিয়াসিসের একটি বিশ্বব্যাপী নেটওয়ার্ক প্রস্তাব করেছিলেন:
যেমন [কম্পিউটারের] এর একটি নেটওয়ার্ক, ওয়াইড-ব্যান্ড যোগাযোগ লাইন তথ্য স্টোরেজ এবং আহরণ এবং [OTHER] মিথোজীবী ফাংশন অপেক্ষিত অগ্রগতি সঙ্গে একসঙ্গে অধুনাতন লাইব্রেরি ফাংশন [যা প্রদান করা] এর দ্বারা একে অপরের সাথে সংযুক্ত থাকবে ।

আগস্ট ১৯৬২ সালে লিক্লিদার এবং ওয়েলডেন ক্লার্ক পত্রিকা “অন-লাইন ম্যান-কম্পিউটার কমিউনিকেশন” প্রকাশ করেন যা একটি নেটওয়ার্ক ভবিষ্যতের প্রথম বিবরণ ছিল।অক্টোবর 1962 সালে লিকলিডার ম্যান্ডেট পরস্পর সম্পর্কিত বা সংযুক্ত শাইয়েন মাউন্টেন এ প্রতিরক্ষা প্রধান কম্পিউটারের ইউনাইটেড স্টেটস ডিপার্টমেন্ট পেন্টাগন এবং এসএসি এইচকিউ সঙ্গে নবপ্রতিষ্ঠিত ইনফরমেশন প্রসেসিং প্রযুক্তি অফিস (IPTO) DARPA সংক্রান্ত মধ্যে পরিচালক হিসেবে জ্যাক Ruina দ্বারা ভাড়া করা হয়েছে।সেখানে তিনি কম্পিউটার গবেষণা এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার DARPA সংক্রান্ত মধ্যে একটি অনানুষ্ঠানিক গ্রুপ গঠন করে।

Page Sidebar