সাহিত্য কথা
Now Reading
আবার দেখা হবে। পর্ব-১
240 48 0

আবার দেখা হবে। পর্ব-১

by MD GOLAM KIBRIA SAWONMay 16, 2017
What's your reaction?
লাইক ইট!
0%
FUNNY
0%
Sad
0%
Boring
0%

চারদিকে খুব বৃষ্টি হচ্ছে। আমি দাঁড়িয়ে আছি রাস্তার পাশের একটি চায়ের দোকানের সামনে। বড় খালার বাসায় যাচ্ছিলাম , হঠাত আচমকা বৃষ্টি নামার কারণে অনেকটা ভিজে গেছি। আমার বাসা মিরপুর আর বড় খালার বাসা বনানী। ঢাকা ক্যান্টনমেন্টের ভিতর দিয়ে যাওয়ার কথা আমার। কিন্তু বৃষ্টির কারণে আমি এখন দাঁড়িয়ে আছি মিরপুর১৪ তে, একটি চায়ের দোকানের সামনে। বড় খালার বাসায় একটা জরুরী কাজে যাচ্ছিলাম; পারিবারিক কাজ। কিন্তু এখন মনে আসছে না ঠিক। গত কয়েকদিন ধরে আমি নিজেই বুঝতে পারছি যে আমার মাথায় কিছু একটা গণ্ডগোল হয়েছে। সবকিছু কেমন যেন ভুলে যাই , আবার কিছু সময় পর মনে পড়ে। চায়ের দোকানের সামনে দাঁড়িয়ে চা খাচ্ছি , এমন সময় একটা মেয়ে তাড়াহুড়া করে ছাতা বন্ধ করতে করতে আমার সামনে এসে দাঁড়াল।
এইযে একটু সড়ে দাঁড়ান।
আমি কিছু বুঝে ওঠার আগেই সড়ে বাইরের দিকে দাঁড়ালাম।
আমি মেয়েটার ঝাড়ি খেয়ে লজ্জায় চুপ করে আছি। মেয়েটার বয়স কত হবে? ১৮ বা ১৯ বড়জোর। আর আমার বয়স ২৬। কেউ দেখেনি বলে এই পুচকি মেয়ের ঝাড়িতে প্রেস্টিজে লাগলো না। মেয়েটার চুল বৃষ্টির পানিতে ভিজে আরো কালো দেখাচ্ছে। চুলগুলো কেমন যেন আকর্ষণ করছে আমাকে। আমি চা খাওয়া শেষ করে বাইরের দিকে তাকিয়ে বৃষ্টি দেখছি আর কখন বৃষ্টি থামবে তাঁর জন্য অপেক্ষা করছি। মেয়েটা আমার দিকে তাকিয়ে মিষ্টি সুরে বলল- আচ্ছা, এখান থেকে ঢাকা মেডিকেল কিভাবে যাবো বলতে পারেন?
আমি অবাক। কিছুক্ষণ আগে যে মেয়ে আমাকে ঝাড়ি দিল, সে এখন আমাকে মিষ্টি সুরে কিছু জিজ্ঞেস করছে। মেয়েটা কে প্রথমে খুব রাগী মনে হচ্ছিলো কিন্তু এখন মনে হচ্ছে এই মেয়ের মত মায়াবী মেয়ে আর একটিও নেই।
ঢাকা মেডিকেল এখান থেকে অনেক দূরে।
অনেক জরুরী। আমাকে যেতেই হবে।
আচ্ছা, আমি আপনাকে বলে দিচ্ছি কিভাবে যেতে হবে। আশা করি যেতে পারবেন।
এখন বৃষ্টি থেমে গেছে অনেকটা।
আসলে আমি ঢাকায় নতুন আর ঢাকার রাস্তায় পথ চলতেও কেমন যেন ভয় লাগে, অনেক গাড়ি। আপনার যদি সময় থাকে আর কিছু মনে না করেন তাহলে আমাকে প্লিজ একটু পৌঁছে দিন।
আপনি আমাকে চিনেন? অপরিচিত লোকের সাথে যেতে ভয় লাগবে না?
আমি আপনাকে না চিনলেও আরও ২০মিনিট আগে আপনাকে দেখেছি একজন বৃদ্ধকে রাস্তা পার করিয়ে দিচ্ছেন। মন বলছে আপনি অতটা খারাপ মানুষ নন।
বৃষ্টি নামার আগে দেখলাম একজন বৃদ্ধ লোক রাস্তা পার হওয়ার চেষ্টা করছেন, কিন্তু সেখানে ওভারব্রিজ না থাকায় ও রাস্তায় প্রচুর গাড়ি থাকার কারণে লোকটি রাস্তা পার হতে পারছেন না। তাই আমি সাহায্য করেছিলাম। তবে এই মেয়ে দেখলো কিভাবে সেটা বুঝতে পারলাম না।
চুপ করে আছেন যে, আমাকে পৌঁছে দিতে পারবেন?
আমি রাজি হয়ে বললাম চলুন।
থ্যাংকস। আচ্ছা, আপনার চুলগুলো এতো বড় বড় কেনো?
আমি রীতিমত আকাশ থেকে পড়লাম। আরে এই মেয়েকে চিনি না, জানি না। বিপদে পড়েছে বলে সাহায্য করছি। আমি এমনিতেই মেয়েদের থেকে দূরে দূরে থাকি। কিন্তু এই মেয়ে আমার চুল নিয়ে কথা বলে ফেলল। কি সাংঘাতিক।
এমনি। শখ করে চুল বড় রেখেছি।
ছেলেদের এত বড় চুল আমি কখনো দেখিনি। মেয়েদের চুল থাকবে বড়। ঠিক আমার চুলের মত। আচ্ছা বলুন তো আমার চুলগুলো কেমন? সুন্দর লাগছে দেখতে?
আমি মনেমনে ভাবলাম এই মেয়ে বাচাল নাকি। নাহ, মনে হয় মাথায় ডিস্টার্ব। বললাম, আপনার চুলগুলো অনেক কালো আর সুন্দর।
আপনি তখন বলছিলেন আপনি ঢাকায় নতুন এসেছেন। তাহলে আপনার বাসা কোথায়?
ময়মনসিংহ। তবে এটা ভেবে ভুল করবেন না যে আমি গ্রামে থাকি। ময়মনসিংহ সদরেই আমাদের বাসা।
আসলেই। এই মেয়ের কথাবার্তা শুনেই বুঝা যায় শহরে থাকে। তা ঢাকা মেডিকেল কেন যাচ্ছেন?
রক্ত দিতে।
আপনার আত্মীয় কেউ অসুস্থ?
না। আত্মীয় না, ফেসবুকে একটা গ্রুপে দেখলাম একজনের হার্টে অপারেশন হবে আজ রাতের মধ্যে ২ ব্যাগ রক্ত লাগবে। ও নেগেটিভ রক্ত। সহজে নাকি পাওয়া যায় না। আর রোগীর পরিবার থেকে এক ব্যাগ ম্যানেজ করেছে, বাকি এক ব্যাগ আমি দিবো। ব্লাড ব্যাংকে খুঁজেও পায়নি। সময়ও কম ছিল। তাই আমি রাজি হলাম। জানেন রোগীর স্বামী আমাকে ফোন দিয়েই কেদে দিয়েছে।
আচ্ছা। আমরা চলে এসেছি বাকি কথা পড়ে শোনা যাবে। চলুন রোগীর কাছে যাই।
ভিতরে ঢুকতে ঢুকতে মেয়েটি সম্ভবত রোগীর স্বামীকে ফোন দিল। ভদ্রলোক এসেই আমাদের সালাম দিলেন। তিনি মনে হয় কল্পনাও করতে পারেননি রক্ত দিতে এই মেয়ে এত দূরে চলে আসবে , তাও একা। ভদ্রলোক আমাদের ব্লাড ব্যাংকের সামনে বসিয়ে রেখে খাবার আনতে গেলো।
আচ্ছা, আমি তাহলে যাই। আপনি থাকেন।
চলে যাবেন ? আমার জন্য আরেকটু কষ্ট করুন। আরেকটু সময় থাকুন। রক্ত দেয়া হয়ে গেলে আমাকে প্লিজ বাসস্ট্যান্ডে দিয়ে আসবেন।
অকে। আচ্ছা, আপনার নাম তো জানা হয়নি।
আমার নাম মিতু। আপনার?
আমি পাভেল। আপনি যে একা ঢাকা চলে আসলেন বাসার কেউ চিন্তা করবে না ?
না। বাসায় বলেছি বান্ধবীর বাসায় যাব।
আপনি মিথ্যা বলেন?
ভালো কাজের জন্য এমন ছোট মিথ্যা বলা যায়।
ভদ্রলোক মিতু আর আমার জন্য ৪টা ডাব, পাউরুটি, ১ লিটার জুস, ২ প্যাকেট তেহারী, পানি নিয়ে এসেছেন।

 

চলবে ……………………………………………………………………

About The Author
MD GOLAM KIBRIA SAWON
MD GOLAM KIBRIA SAWON

I love my family most.
Cricket & Traveling is my hobbies.