বাংলাদেশ পরিচিতি
Now Reading
টেকেরঘাট – ভ্রমণ কথা
13875 2459 3

টেকেরঘাট – ভ্রমণ কথা

by Rohit Khan fzsMay 24, 2017
What's your reaction?
লাইক ইট!
100%
FUNNY
0%
Sad
0%
Boring
0%

ভালোবাসার মাঝে যেন লুকিয়ে আছে আমাদের বাংলাদেশ । আমরা অনেক টাকা খরচ করে দেশের বাহিরে গিয়ে থাকি তাদের দেশের সুন্দর্য উপভোগ করার জন্য । কিন্তু আমাদের ঘরের পাশে যে এক সুন্দরের লীলাভূমি তা হয়তো আমাদের কখনোই খেয়াল হয়নি । আসলে কবি যথার্থ বলেছেন

বহু দিন ধ’রে বহু ক্রোশ দূরে
বহু ব্যয় করি বহু দেশ ঘুরে
দেখিতে গিয়েছি পর্বতমালা,
দেখিতে গিয়েছি সিন্ধু।
দেখা হয় নাই চক্ষু মেলিয়া
ঘর হতে শুধু দুই পা ফেলিয়া
একটি ধানের শিষের উপরে
একটি শিশিরবিন্দু।

এখন মূল আলোচনায় ফিরে আসি । আজ আমি আপনাদের আমার সাথে আমার লেখায় মাধ্যমে ঘুরিয়ে নিয়ে আসবো সুনামগঞ্জ । আমরা অনেকেই সুনামগঞ্জে গিয়েছি বিশেষ করে টাংগুয়া হাওর ঘুরে জন্য । বা অনেকে আবার সুনামগঞ্জের শিমুল বাগান ঘুরে এসেছেন । এর সামনে থেকে এগিয়ে গেলে মানে টাংগুয়া হাওর থেকে সামনে গেলে আপনি দেখতে পাবেন টেকেরঘাট ।

একদিকে লেক আরেক দিকে ছোট ছোট পাহাড় । যা আপনি দেখে মুগ্ধ না হয়ে পারবেন না । অপরূপ সাজে যেন প্রকৃতি তার আপন মনে সেজে বসে আছে আপনার জন্য .। মূলত টেকেরঘাট হলো একটি পরিতেক্ত চুনাপাথরের খনি । এখানে আগে চুনাপাথর উত্তোলন করা হতো । একসময় একে পরিতেক্ত ঘোষণা করা হয় তার পর থেকে যেন এই টেকেরঘাট হয়ে উঠছে পর্যটক প্রেমীদের কাছে এর সুন্দর্যের লীলা ভূমি ।

আপনি দুই ভাবে যেতে পারবেন এই সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা ও তাহিরপুর উপজেলার টাংগুয়া হাওরে । টাংগুয়া হাওর এর কথা বললাম কারণ আপনি যদি টাংগুয়া হাওর হয়ে যান তাহলে আপনি এক সাথে দুইটি জায়গা ঘুরে আসতে পারবেন ।

১ আপনি ট্রেনে করে যেতে পারবেন এই টেকেরঘটে । প্রথমে আপনি হাওর এক্সপ্রেস করে চলে আসুন মোহনগঞ্জ রেলওয়ে স্টেশনে । সেখান থেকে আপনি রিক্সা করে চলে আসুন দৌলত পুর গ্রামের ব্রীজে। আপনি যদি ট্রেনে করে আসেন তাহলে ভাড়া লাগবে ৩২০ টাকা শোভন চেয়ার । আর মোহনগঞ্জ থেকে দৌলত পুর ভাড়া নিবে ৬০ টাকা । আপনাকে রিকশাওয়ালা ব্রীজের গোড়ায় নামিয়ে দিবে । এই ব্রিজ মূলত নেত্রকোনা আর সুনামগঞ্জ কে আলাদা করেছে । আপনি ব্রীজ এর থেকে রিক্সা নিয়ে চলে যাবেন ধর্ম পাশা গ্রামে । ভাড়া পড়বে ৬০ টাকা . সেখান থেকে তাহের পুর হয়ে চলে আসুন । সেখানে দেখা পাবেন টাংগুয়া হাওর এর । একটি নৌকা বা স্প্রীড বোর্ড ভাড়া করে ঘুরে বেড়ান টাংগুয়া হাওর । যখন রোদ নেমে আসবে তখন মাঝিকে বলবেন তিনি যেন আপনাকে টেকেরঘাট কাছে নামিয়ে দিয়ে . নৌকা ভাড়া পড়বে ৬০০ টাকার মতো । যেই ঘাটে আপনাকে নামিয়ে দিবে সেখান থেকে হেটে আসলে আপনার ৩০ মিনিট লাগবে অথবা অটো তে করে আসলে ১০ টাকা ভাড়া নিবে। টেকেরঘাট দেখে আপনার মন ভরে যাবে । একদিকে নীল পানি আর পাশে ছোট ছোট টিলা আর কিছু পাহাড় বাংলাদেশের শেষ সীমানায় উঁকি দিচ্ছে ।

২ আপনি চাইলে বাসে করে চলে আসতে পারেন সুনামগঞ্জ । আপনি সায়দাবাদ থেকে সুনামগঞ্জ গামী যেকোনো বাসে বা শ্যামলী বা হানিফ এ করে চলে আসুন সুনামগঞ্জে । ভাড়া পড়বে ৫৫০ টাকা । সময় প্রায় ৫ ঘন্টা লাগবে । আপনাকে ওরা নামিয়ে দিবে নতুন ব্রীজ এর সামনে । আপনি সেখানে দেখবেন কিছু লোক মোটরসাইকেল নিয়ে দাঁড়িয়ে আছে আপনার জন্য । আপনি যদি সরাসরি টেকেরঘাট যেতে চান তাহলে রিজার্ভ করে নিতে পারেন । ভাড়া পড়বে ৩০০ থেকে ৫০০ টাকা । টেকেরঘাট যাওয়ার পথে যাদুকাটা নদী পড়বে । তা পার হতে মানুষ এর জন্য ৫ টাকা আর মোটরসাইকেল এর জন্য ২০ টাকা । আবার আপনি ভেঙে ভেঙে ও যেতে পারেন । আপনি নতুন ব্রীজ থেকে যাদুকাটা নদী ভাড়া পড়বে ২০০ টাকা আর নদী পার হয়ে মোটরসাইকেল ভাড়া নিতে হবে টেকেরঘাট পযর্ন্ত ভাড়া নিবে ১২০ টাকা । আপনি অবশ্যই ভাড়া নেয়ার আগে দাম দামি করে নিবেন । তাহলে আপনার কিছু টাকা বেঁচে যাবে ।

আপনি যদি যেতে চান শুধু টেকেরঘাট দেখার জন্য তাহলে আমি বলবো শীতের সময় যাওয়ার জন্য । তখন হাওরের পানি একদম কম থাকে জীবনের ঝুঁকি কম থাকে । আর প্রকৃতির আসল সৌন্দর্য উপভোগ করতে পারবেন । আর যদি আপনি ট্রেনে করে যেতে চান মানে টাংগুয়া হাওর ও সাথে টেকেরঘাট দেখবেন তাহলে বলবো বর্ষার শেষে ও শরৎ কালে যেতে পারেন ।

সুনামগঞ্জে থাকার ব্যবস্থা খুব খারাপ না হলেও আপনি মোটামুটি মানের ভালো হোটেল পাবেন । হোটেল ভাড়া মূলত সিজন আর রুমের সাইজের উপর নির্ভর করে । আর যেহেতু আপনি হাওর এলাকায় যাচ্ছেন সেখানে খাবারে কোনো সমস্যা হবে না। বিশেষ করে মাছের কোনো অভাব পাবেন না । আসে পাশে যেই সব খাবার হোটেল আছে সেগুলোতে আপনি তাজা মাছ পাবেন । ঢাকায় আসার পথে আপনি বড় গলদা চিংড়ি নিয়ে আসতে পারেন কম দামে ।

আপনি টোটাল দুইদিনের প্ল্যান করে যেতে পারেন । যদি ট্রেনে যান তাহলে টোটাল খরচ পড়বে ১৫০০ টাকা আর যদি বসে যান তাহলে পড়বে ২০০০ টাকার মত ।

রেটিং
পাঠকের রেটিং
Rate Here
পোস্টের টাইটেলের সাথে মুল লেখার মিল
80%
পোস্টের ছবি কতটা সামঞ্জস্য পূর্ন
77%
লেখনীটা কেমন?
66%
পোস্টটি পড়ে আপনি কতটুকু স্যাটিসফায়েড?
82%
76%
পাঠকের রেটিং
25 ratings
You have rated this
About The Author
Rohit Khan fzs
Rohit Khan fzs

বি.এস.সি করছি ইলেকট্রনিক এন্ড টেলিকমিউনিকেশন ইঞ্জিনিয়ারিং। লিখতে ভালবাসি। নতুন নতুন মানুষদের সাথে পরিচিত হতে পছন্দ করি।

3 Comments

You must log in to post a comment