নির্ভরতার প্রতিকঃ মুশফিকুর রহিম

Please log in or register to like posts.
News

সফল মানুষদের জন্য দুটো জিনিস হরহামেশা অপেক্ষা করে। একটি ভালোবাসা এবং আরেকটি ঘৃণা! এরা একই সময়ে মুদ্রার এপিঠ ওপিঠ দুটোই দেখতে পায়। ফ্যানদের ভালোবাসাতো সবসময় প্রকাশ্যই থাকে , বাকি রইলো হেটারদের হেট করা।
এক্ষেত্রেও ভিন্ন ভিন্ন উপায় অবলম্বন করে তারা। কেউ প্রকাশ্যে ঘৃণা করে আর কেউ আচার আচরণে বুঝিয়ে দেয়।
সেইফ জোনে থাকার জন্য দ্বিতীয়টার নাম দেওয়া হয় ‘সমালোচনা’! যদিও সমালোচনা আর ঘৃণা কি তা বুঝতে তেমন কষ্ট হওয়ার কথা না। তবুও যেহেতু তারা প্রকাশ্যে ঘৃণা করে বলছেনা সেহেতু তাদের কথাই ঠিক ধরে নেওয়াই আম ফ্যানদের জন্য মঙ্গল। 

এসবের মাঝেও বড় প্রাপ্তি হিসেবে দেখা দেয় সেটা, যখন সে তার সফলতা দিয়ে সমালোচক বা হেটারদের মুখ বন্ধ না শুধু, প্রশংসা বাক্যও বের করে আনে। এই কাজটা বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের উইকেট কিপার কাম ব্যাটসম্যান মুশফিক বরাবরই করে আসছে।
প্রিয় মুশির মাঝে ক্লাসিক্যাল তেমন কিছু ছিলো না এবং সে নেচার গিফটেডও নয়। তবুও দিনের পর দিন কঠোর পরিশ্রম করে নিজেকে নিয়ে গেছেন এক অনন্য উচ্চতায়! বাংলাদেশ ব্যাটিংয়ের মূল তিন স্তম্ভের এক স্তম্ভ এখন সে। শুরুর দিকের মুশফিক আর পরবর্তী মুশফিকের মাঝে অনেক ব্যাবধান তৈরি করতে সমর্থ্য হয়েছে শুধুমাত্র তার কঠোর পরিশ্রম আর একাগ্রতার কারনে। কিপিং এর দূর্বলতা বাদ দিলে তার মাঝে আর কোন অপূর্ণতা আছে বলে মনে হয়না।প্রথম দিকে কিছুটা ব্যাটিং দুর্বলতা থাকলেও ধীরে ধীরে করে তুলেছেন পরিপক্ক ।আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে বাংলাদেশ এর হয়ে সব ফরম্যাট মিলিয়ে ৮১১০ রান তার দখলে!

ছোট্ট মুশি থেকে নতুন করে পাওয়ার অনেক কিছু আছে,ব্যাট হাতে,কখনো কিপিং গ্লাভসে.শুরুতেই দলের বিপর্যয়?চিন্তা নেই,তখন ই দেখতে পাই একজন এর ব্যাট জ্বলে উঠেছে,,তিনি আমাদের অন্যতম নির্ভরতার প্রতিক।যেকোন ফরম্যাটে ৩য় সর্বোচ্চ রানের মালিক উইকেট রক্ষক হিসেবে । আশরাফুল নিষিদ্ধ হবার কিছু দিন পরে হঠাৎ করে মুশফিকের ব্যাটিং তাণ্ডব দেখে আমি দ্বিধায় পড়েছিলাম; এ কে রে ? আশরাফুল নাতো?
পরে দেখলাম মুশফিক; অথচ সাকিব, মুশফিক, রিয়াদ এদের দূর্বল ব্যাটিং দেখে এক সময় বিরক্ত লাগতো ,আশরাফুল নিষিদ্ধ হলে কিভাবে কিভাবে যেনো এই তিন জনের ব্যাটিং পাল্টে গেলো। মাশরাফি মর্তুজা বলেন  ‘একমাত্র মুশফিকই, যে কোনো পরিস্থিতিতে ভালো পারফর্ম করতে পারে। ৪ নম্বরে ব্যাট করলে মুশি অবশ্যই ভালো ক্রিকেট খেলে।বর্তমানে তাকে ৪নম্বর জায়গায়
ব্যাটিং করতে দেয়া হয়েছে। এবং সে নিয়মিত পারফর্ম করে গেছে।তার শতক আমার কাছে, খুবই ভালো লাগে। সে বাংলাদেশ দলের নির্ভরযোগ্য একজন ব্যাটসম্যান,
চাপের সময়ও ভালো ব্যাটিং করতে পারে। এজন্য তাকে
রান মেশিন বলে ডাকি’ ।

মাঝে মাঝে মুশির উপর রাগ হয় , ওর যে যোগ্যতা দেখেছি, তাতে ও দাড়ায় গেলে যে কোন ফরম্যাটে যে কোন ম্যাচ’ই বের হয়ে আসে। আর আমাদের তো একটা রোগ আছেই, এক জন গেলে বাকিরা যাওয়া আসা করতেরতে থাকে; আবার একজনন দাড়ায় গেলে সেদিন সবাই ভাঙ্গচুর বাড়ি আরম্ভ করে। যাই হোক দোষ গুণে বাংলাদেশ ক্রিকেট যে কোন দেশের জন্যে এখন হুমকী। শুধু ওদের মানসিক দৃড়তার জায়গাটা স্ট্রং করার ঘাটতি ছিলো। বি সি বি এই জায়গাটা নিয়ে কোন কাজ করেছে নাকি ধরতেই পারিনি আমি জানিনা। জানি শুধু বাংলাদেশ এখন আর রোজ রোজ হারেনা। ওরা নিজেরাই জানেনা কি ভীষণ খেলতে পারে ওরা।

ট্রাইনেশন ও চ্যাম্পিয়নস ট্রফিতে লাল সবুজের জার্সিতে   মুশি ভাই এর পারফরমেন্স ধারাবাহিক থাকুক এই শুভকামনা রইলো

 

Reactions

0
0
0
0
0
0
Already reacted for this post.

Reactions

Nobody liked ?